লাশ নিয়ে ফিরতে গিয়ে লাশ হলেন নিজেরাই

298

a

লাইভ বার্তাঃ 

বগুড়ার শেরপুরে গতকাল বুধবার সকালে মহাসড়কে ট্রাকের ধাক্কায় লাশবাহী একটি অ্যাম্বুলেন্সের চালকসহ দুজন নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও দুজন। আহত লোকজনকে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কের উপজেলার মহিপুর বাজার এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

দুর্ঘটনায় অ্যাম্বুলেন্সের চালক রেজানুর রহমান মণ্ডল (৩৫) ভোর ছয়টার দিকে দুর্ঘটনাস্থলেই নিহত হন। তাঁর বাড়ি গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর থানার দক্ষিণ সনতলা গ্রামে। আর এই দুর্ঘটনায় আহত হয়ে গোলাম হোসেন (৪০) চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকাল সাড়ে নয়টায় বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান। তিনি ওই অ্যাম্বুলেন্সে বহন করা মৃত ব্যক্তি হারান মিয়ার (৮০) বড় মেয়ের জামাই।

শেরপুর থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) শামসুজ্জোহা বলেন, দুর্ঘটনায় অ্যাম্বুলেন্সের সামনের অংশ দুমড়েমুচড়ে যায়।

প্রত্যক্ষদর্শী দুজনসহ উপজেলা ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা সোহেল রানা বলেন, শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত মঙ্গলবার এক ব্যক্তি মারা গেলে তাঁর স্বজনেরা লাশ নিয়ে ওই অ্যাম্বুলেন্সে করে সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জে ফিরছিলেন। লাশের সঙ্গে ছিলেন নারী-পুরুষ মিলিয়ে তিনজন আত্মীয়। মহাসড়কের ওই স্থানে অ্যাম্বুলেন্সটি পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে বগুড়াগামী পণ্যবাহী একটি ট্রাকের সঙ্গে ধাক্কা লাগলে এই দুর্ঘটনা ঘটে। এর পরপরই পণ্যবাহী ট্রাকটি পালিয়ে যায়।

সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জের সোনারাম পূর্বপাড়া গ্রামের আবদুল কুদ্দুস বলেন, গত মঙ্গলবার রাতে তাঁরা মামা একই উপজেলার দেবরাজপুর গ্রামের হারান মিয়া (৮০) বুকের ব্যথা নিয়ে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হয়ে দিবাগত রাত তিনটার দিকে মারা যান। পরে গতকাল ভোরে লাশ নিয়ে ফেরার সময় তাঁর বড় মেয়ের জামাই গোলাম হোসেনসহ তিনজন দুর্ঘটনার শিকার হন।

শেরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান মো. এরফান বলেন, পালিয়ে যাওয়া ট্রাকটির সন্ধান আজ বেলা একটা পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।

ঝ /০৯

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY