মুনাফা তোলার প্রবণতায় সূচকে কারেকশন

14

l18

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

টানা ৭ কার্যদিবসে সূচক ও লেনদেনে ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা অব্যাহত থাকলেও মঙ্গলবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচক ও লেনদেন কমেছে। এদিন, মুনাফা তোলার প্রবণতায় বাজারে সূচক ও লেনদেনে কারেকশন হয়েছে বলে মনে করছেন বাজার সংশ্লিষ্টরা।

দিনশেষে ডিএসই’র সার্বিক মূল্য সূচক কমেছে ১৮.০৭ পয়েন্ট। অন্যদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সূচক কমেছে ২০.০৮ পয়েন্ট ও লেনদেন কমেছে প্রায় ৫ কোটি টাকা। ডিএসই ও সিএসইর বাজার পর্যালোচনায় এ তথ্য জানা গেছে।

বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, মঙ্গলবার ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৩০টি কোম্পানি ও ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৯৬টির, দর কমেছে ১৮৮টির ও দর অপরিবর্তিত ছিল ৪৬টি প্রতিষ্ঠানের। এ সময় ২৯ কোটি ৮ লাখ ৬৪ হাজার ৬৭৮টি শেয়ার লেনদেন হয়, যার বাজার মূল্য ছিল ১ হাজার ৫৩ কোটি ৬১ লাখ টাকা।



দিন শেষে ডিএসইর সার্বিক মূল্য সূচক ডিএসইএক্স আগের কার্যদিবসের তুলনায় ১৮.০৭ পয়েন্ট কমে ৫৫৮০.৬৩ পয়েন্টে স্থিতি পায়। এছাড়া শরীয়াহ্ ভিত্তিক কোম্পানিগুলোর মূল্য সূচক ডিএসইএস কমেছে ৪.৬১ পয়েন্ট ও ডিএস-৩০ সূচক বেড়েছে ৮.৯৮ পয়েন্ট।

ডিএসইতে টার্নওভার তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে আর্থিক খাতের তালিকাভুক্ত কোম্পানি লঙ্কাবাংলা ফাইন্যান্স। দিন শেষে কোম্পানিটির ৩৯ কোটি ৬৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। টার্নওভারে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল বারাকা পাওয়ার, প্রতিষ্ঠানটির ৩৯ কোটি ১০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়। তৃতীয় অবস্থানে থাকা এসিআই ফরমুলেশন ৩১ কোটি ১ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

এছাড়া টার্নওভারে থাকা কোম্পানিগুলোর মধ্যে-বেক্সিমকোর ২৬ কোটি ৮৬ লাখ টাকা, অ্যাপলো ইস্পাতের ২৬ কোটি ৫১ লাখ টাকা, ফরচুন সুজের ২৫ কোটি ৬৭ লাখ টাকা, আরএকে সিরামিকের ২২ কোটি ৯৩ লাখ টাকা, আইডিএলসি ফাইন্যান্সের ২০ কোটি ৪৪ লাখ টাকা, প্যাসিফিক ডেনিমসের ১৯ কোটি ৭ লাখ টাকা ও তিতাস গ্যাসের ১৯ কোটি ৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়।

দিন শেষে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সাধারণ মূল্য সূচক ২০.০৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১০৪৭৫.৫২ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ২৫৯টি কোম্পানির ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৮৩টির, কমেছে ১৩৭ টির এবং অপরিবর্তিত ছিল ৩৯ টির। আর দিনশেষে লেনদেন হয়েছে ৬১ কোটি ৬৫ লাখ টাকা।

জ /১৮

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY