বাংলাদেশে কোনো দুর্নীতির স্থান হবে না!

98

download-1লাইভ ডেস্ক :

‘দুর্নীতি’  দার্শনিক, ধর্মতাত্ত্বিক, নৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে কোন আদর্শের নৈতিক বা আধ্যাত্মিক অসাধুতা বা বিচ্যুতিকে নির্দেশ করে। আবার এই শব্দটিই যখন বিশেষণ হিসেবে ব্যবহৃত হয় তখন সাংস্কৃতিক অর্থে “সমুলে বিনষ্ট হওয়াকে” নির্দেশ করে।

দুর্নীতি বাংলাদেশের অন্যতম জাতীয় সমস্যা। দেশের উন্নয়ন, দারিদ্র্য বিমোচন, মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা, আইনের শাসন, গণতন্ত্রের প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ, সুশাসন ও সার্বিকভাবে ইতিবাচক সমাজ পরিবর্তনের পথে দুর্নীতি এক কঠোর প্রতিবন্ধক।

শনিবার (১০ ডিসেম্বর) সকালে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও উপজেলা পরিষদ চত্বরে ‘দুর্নীতি প্রতিরোধ’ বিষয়ক গণশুনানির উদ্বোধনকালে  দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ড. নাসির উদ্দিন আহমেদ দুর্নীতি নিয়ে একটি হুশিয়ারি বক্তব্য রাখেন। সেখানে তিনি বলেন “দেশের কোনো সরকারি অফিসে দুর্নীতি চলবে না”।

তিনি আরও বলেন, ‘গণশুনানি একটি সামাজিক দায়বদ্ধতা। আর এ গণশুনানির মূল উদ্দেশ্য, সমাজে দুর্নীতির মাত্রা কমিয়ে আনা। দুর্নীতি প্রতিরোধের পাশাপাশি দুর্নীতি দমনেও কাজ করে চলেছে দুদক’।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে পাঁচটি সরকারি অফিস নিয়ে এবারের গণশুনানি অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সেগুলো হচ্ছে- সোনারগাঁও উপজেলা ভূমি অফিস, সাব-রেজিস্ট্রি অফিস, উপজেলা বিদ্যুৎ সমিতি অফিস ১ ও ২, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ অফিস, উপজেলা প্রাথমিক ও মাধমিক শিক্ষা অফিস।

গণশুনানিতে দুদকের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ পাঁচটি অফিসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং সরকারি অফিসগুলোতে সেবাবঞ্চিত ভুক্তভোগী নাগরিকরা উপস্থিত ছিলেন।

সংবিধানের ৭/১ অনুচ্ছেদে বলা আছে, প্রজাতন্ত্রের সব ক্ষমতার অধিকারী জনগণ। কিন্তু সেই জনগণ যদি নাগরিক সুযোগ-সুবিধা না পায়, তাহলে দেশের উন্নয়ন হবে কিভাবে? এছাড়া বাংলাদেশে কোনো দুর্নীতির স্থান হবে না। এজন্য আমাদেরকে প্রতিটি সরকারি অফিস দুর্নীতিমুক্ত করতে হবে’।

 

সা/ল/০০২

 

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY