নিপীড়িত মানুষ তাদের সংগ্রাম অব্যাহত রেখেছে : মোর্ত্তজা

33

নিজস্ব প্রতিবেদক :
৫২’র একুশে ফেব্রুয়ারি মা কে মা বলার দাবিতে ঢাকার রাজপথ রঞ্জিত করে বরকত, রফিক, জব্বার, শফিক, সালাম অকুতোভয়ে প্রাণদান কারী ও ভাষা সৈনিকদের অমর স্মৃতির প্রতি গভীরতম শ্রদ্ধা জানান এনডিপি চেয়ারম্যান ও যুক্তফ্রন্টের অন্যতম শীর্ষ নেতা খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা।

তিনি বলেন, ভাষা শহীদদের প্রাণদান শুধু মাতৃভাষার জন্য ছিল না। অর্থনৈতিক মুক্তি ও সামাজিক স্বাধিকার আদায়ের জন্যও তাদের সংগ্রাম অব্যাহত ছিল। তৎকালীন শাসকগোষ্ঠী নিজেদের স্বার্থ আদায়ের জন্য বাঙালিদের পদানত করার জন্য বাংলাদেশি মানুষের মা-কে বলার আকাঙ্খা পর্যুদস্ত করার ষড়যন্ত্র।

বুধবার দলীয় কার্যালয়ে ভাষা শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এনডিপি আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান বক্তার বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, প্রতিকুল অবস্থার মধ্য দিয়েই এ দেশের সাধারণ মানুষ, নিপীড়িত মানুষ, লাঞ্ছিত মানুষ, কষ্ট-দুঃখ বুকে নিয়ে পথচলা মানুষ অবিরাম তাদের সংগ্রাম অব্যাহত রেখেছে। এ দেশকে মুক্ত স্বাধীন করতে গিয়ে যুগে যুগে অসংখ্য ক্ষণজন্মা মনীষী ও সাধকের জন্ম হয়েছে। এ দেশে শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী সর্বশেষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম হয়। তাদের ভালোবাসায় তাদের আলো-আঁধারী রুধির ধারায় এ দেশের মাটি পল্লবীত, পুরস্কৃত এ দেশের মানুষ। এ দেশ রবীন্দ্রনাথের, কাজী নজরুলের, জীবনানন্দের, জসীমউদ্দীনের সোনার বাংলাদেশ।

এনডিপি মহাসচিব মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা’র সভাপতিত্বে আলোচনায় বাংলাদেশ ন্যাপ মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুইয়া, লেবার পার্টি মহাসচিব আবদুল্লাহ আল মামুন, ছাত্র মিশন সভাপতি কামরুল ইসলাম সুরুজ, এনডিপি প্রেসিডিয়াম সদস্য মো. মনিরজ্জামান মনির, সহকারী মহাসচিব হায়াত মাহমুদ প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে মো. মঞ্জুর হোসেন ঈসা বলেন, ১৯৫২ ভাষা আন্দোলনের পথ বেয়েই ১৯৬৯, ১৯৭১ এবং স্বাধীনতা। যে স্বাধীনতার জন্য, যে অর্থনৈতিক মুক্তির জন্য এবং আত্মবিকাশের জন্য এ দেশের মানুষ এক কাতারে এসে দাঁড়াতে পারে। সেই স্বাধীনতা, তাদের সেই ইপ্সিত মুক্তি কি আজো অর্জিত হয়েছে?

সভায় ভাষা সৈনিক ড. শফিকুর রহমানের ইন্তেকালে গভীর শোক ও দুখ প্রকাশ করে রুহের মাগফেরাত কামনা ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়।

লাইভবার্তা/ জিএম / ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY