কিরণে ‘সরগরম’ বাফুফে

9

k

ক্রীড়াডেস্কঃ

মাহফুজা আক্তার কিরণ। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের এক আলোচিত-সমালোচিত নাম। সম্প্রতি বাফুফের অনিয়ম আর দুর্নীতি নিয়ে গোয়েন্দা সংস্থার করা একটি প্রতিবেদনেও উঠে এসেছিলো তাঁর নাম।

সেই কিরণ এবার সরগরম করে রাখছেন বাফুফেকে। সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছেন তিনি। সব জায়গায়ই যুদ্ধেদেহী মনোভাব। বাফুফের মহিলা বিভাগের সবক্ষেত্রেই নিজের ক্ষমতা জাহির করে চলেছেন তিনি।

কিরণ সংবাদিকদের বিষোদাগার করছেন। মুখের কথাও তাঁর লাগামহীন। তাঁর ঔদ্ধত্য এমন অসহনীয় জায়গায় পৌঁছেছে যে বাফুফের মহিলা ফুটবলের সংবাদ সম্মেলন বয়কট করতে বাধ্য হয়েছেন ক্রীড়া সাংবাদিকরা। এড়িয়ে চলছেন কিরণের সব অনুষ্ঠান।

আলোচিত-সমালোচিত এই কিরণের কাছেই যেনো অনেকটা জিম্মি ফেডারেশনের সেক্রেটারী থেকে সকলেই।



গতকাল মহিলা ফুটবল দলের সিঙ্গাপুর সফর উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন ছিল বাফুফে ভবনে। মহিলা দলের সংবাদ সম্মেলন মানেই মহিলা ফুটবল কমিটির চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার কিরণের উপস্থিতি অবধারিত।

সাংবাদিকরা অনুরোধ করেন, তাঁকে বাদ দিয়ে কোচ-অধিনায়কের উপস্থিতিতে সংবাদ সম্মেলন করতে। কারণ, ঠিক আগের সংবাদ সম্মেলনে মিডিয়াকে নিয়ে তাঁর আপত্তিকর মন্তব্য। গত রোববার মিডিয়ার উপস্থিতিতে ওয়ালটনের সঙ্গে চুক্তি উপলক্ষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি গণমাধ্যমকে বিষোদ্গার করে বলেছিলেন, ‘ভুটানের কাছে হারের পর মিডিয়া ফুটবল নিয়ে নেতিবাচক রিপোর্ট করেছে এবং অপপ্রচার চালাচ্ছে। এ জন্যই স্পনসর আসছে না মহিলা ফুটবলে। ’ তার মানে কি ভুটানের কাছে হেরেছে বাংলাদেশ—এ সত্যটাকে আড়াল করেই রিপোর্ট লিখতে হবে! মনের মতো করে লেখা হয়নি বলেই এখন তিনি দোষারোপ করছেন গণমাধ্যমকে। এ জন্যই সাংবাদিকরা কিরণকে বাদ দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করতে চেয়েছিলেন।

কিন্তু সাংবাদিকদের অনুরোধে বাফুফে সাধারণ সম্পাদক আবু নাইম সোহাগ রাজি হননি। ফলে সংবাদ সম্মেলন বয়কট করে সাংবাদিকরা অনেকক্ষণ বাফুফে ভবনের মাঠে অপেক্ষা করেন। পরে তাঁরা বিকল্প প্রস্তাব দেন, মহিলা দলের কোচ ও অধিনায়কের সঙ্গে কথা বলার।

কিরণ ভয়ে যেনো তটস্ত বাফুফে সাধারণ সম্পাদক এক কাঠি সরেস। মহিলা কমিটির একান্ত অনুগত সোহাগ বলেছেন, ‘আমরা মিডিয়াকে ডেকেছি সংবাদ সম্মেলনে, তখন আপনারা সাড়া দেননি। এখন আর কারো সঙ্গে কথা বলার সুযোগ নেই। আগের সিদ্ধান্তে অনড় আছে বাফুফে। মহিলা দলের কোচ-অধিনায়ক ও কমিটির চেয়ারম্যানের বক্তব্য ফেসবুক ও টুইটারে পাওয়া যাবে। ’ বাফুফের ‘অনড় সিদ্ধান্ত’ মানে কিরণকে নিয়েই তাঁরা সংবাদ সম্মেলন করবেন। এটা বোঝার পর ক্রীড়া সাংবাদিকরাও ওই বাফুফে সম্পাদককে স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন, ‘যেসব সংবাদ সম্মেলনে কিরণ উপস্থিত থাকবেন, সেগুলো বয়কট করবেন গণমাধ্যমকর্মীরা।

বাফুফের প্রভাবশালী এই নারী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে এর আগেও সাংবাদিকদের সাথে খারাপ আচরণ করেন। কিছুদিন আগে মহিলা ফুটবল দলের রিপোর্টিংয়ের দিন কিরণ ছবি তুলতেও দেননি ফটো সাংবাদিকদের।

এভাবে একটু একটু করেই সীমা লঙ্ঘন করে তিনি এখন যাচ্ছেতাই বলছেন। তাই বাড়বাড়ন্ত এই বাফুফে সদস্যকে বয়কট ছাড়া কোনো উপায় ছিল না গণমাধ্যমকর্মীদের।

এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বাংলাদেশ ক্রীড়া লেখক সমিতি কিরণকে নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়ার অনুরোধ করেছে। একই বার্তা ক্রীড়া সাংবাদিকদের অন্য দুটি সংগঠন বাংলাদেশ স্পোর্টস জার্নালিস্টস অ্যাসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ স্পোর্টস জার্নালিস্টস কমিউনিটির।

আহাস/০০৩

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY